Jul 30, 2008

স্বগত-৯

অনেকগুলো বছর কেটে গেছে
কাটবে আরও অনেকগুলো বছর
তোমার স্মৃতি ঝাপসা হবে আরও
ঘিরবে ছায়া আমার শিশুর কবর।


তবুও আজ সব কুয়াশা মুছে
আসছে নেমে সোনারুপোর আলো
তবুও আজ সমস্ত মেঘ ভেঙে
হঠাৎ এমন বিদ্যুৎ চমকালো।

কৃষ্ণচূড়া ফুলের স্তূপে স্তূপে
ফুলার রোডও আজকে বলে কথা
সময় কি আজ সহজভাবে এসে
ভেঙেই দেবে সকল নীরবতা?

10 comments:

toxoid_toxaemia said...

নীরবতা ভাঙ্গার দরকার কি !
নীরবতাই যে অনেক সময় বলে দেয় অনেক কথা।
তোর আরেকটা চমৎকার কবিতা পড়লাম।

[ওয়ার্ড ভেরিফিকেশনটা বন্ধ করনা বাপ]

সবজান্তা said...

শেষ প্যারাটায় কিছুটা ছন্দপতন হলো বলে মনে হল।

একান্ত ব্যক্তিগত মতে, যদি এক লাইন কবিতাও স্বতঃস্ফূর্তভাবে আসে তাহলে এক লাইনই লেখা উচিত।

আপনার লেখার হাত ভালো, সেটা নিশ্চয়ই নতুন করে বলার কিছু নেই ? কবিতার প্রথম দুই অনুচ্ছেদ অনেক বেশি ভালো লেগেছে।

নতুন লেখা পড়ার প্রত্যাশায় থাকলাম।

toxoid_toxaemia said...

হু, সবজান্তা বাবাজির অভিজ্ঞ মতামত পাওয়া গেল তবে এবং ভাগশেষের ছন্দপতন রোধের চেষ্টাও চোখে পড়ল।

Mina said...

ki bole toxi r shobjanta. amar besh bhalo legeche. ke jane hoito amar kobita shommondhe dharona kom. r o likhte thako ordrila moni.....

নিঘাত সুলতানা তিথি said...

খুব ভালো। বিশেষ করে প্রথম চারটা লাইন চমকে যাবার মত ভালো হয়েছে।
দ্বিতীয় স্তবকটাও দারুন, কিন্তু কেমন যেন মনে হচ্ছে অনেকগুলো সিঁড়ি ডিঙ্গিয়ে ওপরে ওঠা হয়েছে। এত চমৎকার শুরুর পরে আরো অনেক গেঁথে গেঁথে আরো বাড়ানো যেত মনে হয়, আরো সময় নিয়ে। আরেকবার বসবে নাকি দারুন এই থিমটা নিয়ে?

ভাগশেষ said...

ফয়সাল ওয়ার্ড ভেরিফিকেশন কেমনে বন্ধ করে রে? আচ্ছা দাঁড়া গুতাগুতি করে দেখি।

আমাদের সবজান্তা সব জানে! :P

তিথি আপু, ভালো আছেন??

দেখা যাচ্ছে পাঠককে ফাঁকি দেবার চেষ্টা করলে পাঠক ঠিকই ধরে ফেলে!

সত্যি কথা কী, অনেকদিন ধরে একদম কিচ্ছু লিখতে না পেরে নিজেই একদম অস্থির হয়ে উঠেছিলাম, কিছু একটা লিখতে চাচ্ছিলাম খুব করে। কিন্তু প্রথম চারটা লাইনই কেবল মাথায় এসে, তারপরে আর কিছু এলো না। কবিতাটা তবু শেষ করতে চাচ্ছিলাম খুব করে, ভাবলাম এটা যদি শেষ করতে পারি তাহলে হয়ত এর পরে আবার লেখার ফ্লো আসবে। তাই কবিতাটার দ্বিতীয় আর শেষ স্তবক কেবলই সাজানো কথা, ওতে কোনো কবিতা নেই।

আপু তুমি কিন্তু চুরিটা ঠিকই ধরে ফেলেছো। কান ধরছি, আর কখনো লেখাতে ফাঁকি দেবার চেষ্টা করবোনা! আর অনেক ধন্যবাদ তোমাকে, আমার দরিদ্র ব্লগটাতে এসে পড়ে দেখার জন্য, ফীডব্যাক দেবার জন্য।

মিনাপু' তুমি খুবই সুইট আর আমাকে খুব ভালোবাসো দেখে আমি যা ছাতামাথা লিখি তাই তোমার ভালো লাগে, সেটা আমার লেখার গুণ না, তোমার মিষ্টি স্বভাব। ভালো থেকো।

নুশেরা তাজরীন said...

একটু কাজলের ফোঁটা দাও সোনা, অন্তত প্রথম স্তবকের ওপর। আমি বড় হিংসুটে, নজর লাগিয়ে দেব কিন্তু!

ভাগশেষ said...

হাহা! দাও নজর লাগিয়ে, তোমার সুনজরে পড়ে যদি লেখার কিছু উন্নতি ঘটে!!

Mina said...

shei hok joto mishti othoba teto....tor likha porar jonno ashi dekhi ekhono likhish ni kono kichu. ki bepar ondri?

ভাগশেষ said...

আমারে বোবায় ধরছে মিনাপু' :'(